স্বাস্থ্য ও ফিটনেসজীবনযাপন

Unknown fact : প্রতিদিন স্নান করে আপনি নিজের ক্ষতি করছেন, বলছে বিজ্ঞান

বিজ্ঞান সম্মত কিছু কারণ, যা বলছে প্রতিদিন স্নান করা শরীরের পক্ষে হতে পারে ক্ষতিকারক

Unknown fact : ভারতে কেউ রোজ স্নান না করলে তাকে সাধারণত ভালো চোখে দেখা হয় না। প্রতিদিন স্নান করা একটি ভালো অভ্যাস হিসেবে বিবেচিত হয়। কিন্তু আসলে বিজ্ঞান অন্য কিছু বলছে। আসুন জেনে নেই –

সাধারণত, ভারতের মানুষ বিশ্বের সর্বাধিক স্নানকারীদের মধ্যে গণ্য করা হয়। ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণে, গড় ভারতীয় প্রায় প্রতিদিন স্নান করে। কারণ তারা মনে করেন যে এটি করলে তাদের শরীর এবং মন কেবল সতেজ হয় না, বরং তারা তাদের শরীরকে শুদ্ধ করে। অনেক ভারতীয় প্রতিদিন স্নান করে কারণ তারা বিশ্বাস করে যে প্রতিদিনের উপাসনার জন্য স্নান অপরিহার্য। তাছাড়াও আমরা যদি প্রতিদিন স্নান না করি তাহলে আমাদের সকলেই ভালো চোখে দেখবে না, এবং এই কারণেই অনেকে সামাজিক চাপে প্রতি দিন স্নান করতে বাধ্য হয়। কিন্তু আসলে বিজ্ঞান বলছে অন্য কথা। গবেষণায় ধরা পড়েছে যে প্রতিদিন স্নান করা আমাদের শরীরের জন্য কখনো হিতের বিপরীতে কোনো ক্ষতিও করতে পারে।

বিজ্ঞান বিশ্বাস করে যে আপনি যদি প্রতিদিন স্নান করেন তবে আপনি নিজের ক্ষতি করছেন এবং আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও হ্রাস করছেন। সারা বিশ্বের ত্বক বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে আপনি যদি ঠান্ডায় প্রতিদিন গোসল না করেন তবে আপনি ভাল করছেন। অতিরিক্ত স্নান আমাদের ত্বকের ক্ষতি করতে পারে। যাইহোক, গ্রীষ্মে প্রতিদিন স্নান করতে সবাই পছন্দ করে, কিন্তু শীতকালে স্নান করা কোনো চ্যালেঞ্জের থেকে কম নয়। তাই আমরা অনেকেই শীতকালে স্নানের জন্য গরম জল ব্যাবহার করতে পছন্দ করি।

এটি অনেক গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে ত্বকের নিজেকে পরিষ্কার করার আরও বেশ ভাল কিছু ক্ষমতা রয়েছে। আপনি যদি জিমে না যান বা প্রতিদিন ঘাম না করেন, ধুলো-মাটিতে না থাকেন, তাহলে আপনার জন্য প্রতিদিন স্নান করা জরুরি নয়। পরিষ্কার থাকলে আপনি সপ্তাহে তিন থেকে চার দিন স্নান করলেও সেটি আপনার জন্য ভালো।

শীতে বেশিক্ষণ গরম জল দিয়ে স্নান করলে উপকারের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হতে পারে। এতে ত্বক শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। এটি শরীরের প্রাকৃতিক তেল দূর করে। শরীরের এই প্রাকৃতিক তেল আমাদের সকলের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিকারী হিসেবেও কাজ করে। বিজ্ঞানের মতে, এই তেল আপনাকে ময়েশ্চারাইজড এবং সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে। কিন্তু রোজ স্নান করলে এই ক্ষমতা কমিয়ে শুরু করে।

জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির (ওয়াশিংটন ডিসি, ইউএস) সহকারী অধ্যাপক ডাঃ সি ব্র্যান্ডন মিচেল বলেছেন যে স্নান ত্বকের প্রাকৃতিক তেল দূর করে, যা ভালো ব্যাকটেরিয়াও দূর করে। এই ব্যাকটেরিয়া ইমিউন সিস্টেমকেও সমর্থন করে। তাই শীতকালে সপ্তাহে মাত্র দুই-তিন দিন স্নান করা উচিত।

আমেরিকান ইউনিভার্সিটি দ্য ইউনিভার্সিটি অফ ইউটা-এর জেনেটিক্স সায়েন্স সেন্টারের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, “অতিরিক্ত স্নান আমাদের মানবদেহের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার ক্ষতি করে। জীবাণুভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ে। খাদ্য হজম করার ক্ষমতা এবং তা থেকে ভিটামিন এবং অন্যান্য পুষ্টি আলাদা করার ক্ষমতাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

এছাড়াও প্রতিদিন স্নান করলে নখও নষ্ট হয়ে যায়।
প্রতিদিন গরম জল দিয়ে স্নান করলেও নখের ক্ষতি হয়। স্নান করার সময়, আপনার নখ জল শোষণ করে। তারপর তারা নরম হয়ে ভেঙ্গে যায়। এটি প্রাকৃতিক তেলকেও সরিয়ে দেয়, যার কারণে তারা শুষ্ক এবং দুর্বল হয়ে পড়ে। প্রতিদিন গরম জল দিয়ে স্নান করলে নখের ক্ষতি হতে পারে। স্নান করার সময় নখ জল শোষণ করে, যার কারণে তাদের স্বাভাবিক চকচকে ও মসৃণতা কমে যেতে পারে। এর কারণে নখ শুকিয়ে দুর্বল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটির সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ডক্টর অ্যালাইন লারসন একটি গবেষণা করেছেন, “প্রতিদিন স্নান ত্বককে শুষ্ক ও দুর্বল করে তোলে। এ কারণে সংক্রমণের ঝুঁকি খুব দ্রুত বেড়ে যায়। তাই প্রতিদিন স্নান করা উচিত নয়।

স্নান করার অভ্যাস একজন ব্যক্তির মেজাজ, তাপমাত্রা, জলবায়ু, লিঙ্গ এবং সামাজিক চাপের উপর বেশি নির্ভর করে। ভারতে ধর্মীয় কারণ ছাড়াও একটি বড় কারণ হল জলের প্রাপ্যতা। তবে এটাও সত্য যে ভারতে অনেক সময় স্নানের কারণ শুধু সামাজিক চাপে।

সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে, স্নানের ক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে ভারত, জাপান ও ইন্দোনেশিয়ার মানুষ অনেক এগিয়ে। আমেরিকা ও পশ্চিমা দেশগুলোর অনেক গবেষণায় এটা প্রমাণিত যে, প্রতিদিন স্নান করা শুধু জলের অপচয়ই নয়, তা শারীরিক ও মানসিকভাবেও ক্ষতিকর।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button