ভাইরাল ও ভিডিওসম্পর্ক

Unknown Facts : বীনের শব্দ শুনে সাপ কেন নাচতে শুরু করে? জেনে নিন এর পেছনের আসল কারণ

সাপরের বীনের তালে তালে সাপ কেনো নাচতে শুরু করে, আপনি কি জানেন ? আসুন জেনে নেই এর পেছনের আসল রহস্য

Unknown Facts : সমগ্র বিশ্বের প্রায় সকল প্রান্তেই কম বেশি সাপ পাওয়া যায়। পৃথিবীতে হাজার হাজার প্রজাতির সাপ আছে। এর মধ্যে অনেক প্রজাতির সাপ বিষধর এবং কিছু সাপ আছে তাদের বিষ নেই। পৃথিবীর প্রায় সব দেশেই সাপ পাওয়া যায়। এই সাপ স্বভাবে খুব লাজুক, কিন্তু অধিকাংশ মানুষ এখনও তাদের দেখলে ভয় পায়। সাপের পৃথিবী রহস্যে ভরা। সাপগুলি তাদের রত্নগুলির জন্যও পরিচিত। এক মিলিয়নের মধ্যে একটি সাপের একটি বিশেষ রত্ন থাকে বলে লোকেরা বিশ্বাস করে।

সাপ সম্পর্কে ভারতের বিভিন্ন জাতি জনজাতির নিজস্ব বিশেষ ধর্মীয় বিশ্বাস রয়েছে। সনাতন ধর্মে সাপের বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। সাপ হল হিন্দু দেবতা ভগবান শঙ্করের গলার একটি অলঙ্কার। সাপ নিয়ে অনেক গল্প আছে। আজ আমরা সাপ সম্পর্কিত এমনি একটি তথ্য নিয়ে জানবো। প্রচলিত আছে যে, বীনের সুর শুনলেই সাপ নাচতে শুরু করে। কিন্তু এর মধ্যে সত্যতা কতটুকু আসুন জেনে নেই।

A man playing been in front of a snake

কথিত আছে সাপের নাকি বীণার সুর খুব পছন্দ, কিন্তু সাপ আসলে সম্পূর্ণ বধির। সাপ আসলে কোনো শব্দ শুনতে পায় না। আপনি হয়তো সাপ দেখে লক্ষ্য করেছেন সাপের গায়ে কোনো কান নেই। প্রকৃতপক্ষে, সাপ কখনই বীনের সুরে নাচে না, কিন্তু সাপরে যখন বীন বাজায়, তখন তারা নরা চরা করে, সাপ তা দেখে তার শরীর নাড়াচাড়া করে যা একটি স্বাভাবিক ঘটনা।

আপনি হয়তো দেখেছেন যে বীনের ওপর বেশ কয়েকটি কাচের টুকরো দিয়ে সাজানো থাকে। এর পেছনের আসল কারণ হল, যখন সূর্যের আলো ওই কাঁচের টুকরোগুলিতে এসে পরে, তখন সেখান থেকে নির্গত আলো সাপটি দেখে সক্রিয় হয়ে ওঠে এবং নিজের শরীর নাড়াচাড়া করে।

এখন এমন অবস্থায় বীন বাজাতে গিয়ে সাপরে যখন নিজেই নাড়াচাড়া করে, তখন সাপের মনোযোগ সেই আলোর দিকে যায়, সাপটি সেই আলোকে অনুসরণ করে এবং যেদিকে আলো জ্বলে, সাপটি সেদিকেই চলতে শুরু করে। এমন অবস্থায় আমাদের মনে হয় সাপটি বীনের সুরে নাচছে কিন্তু তা আসলে সম্পূর্ণ ভুল।

সাপগুলি তাদের কানের পরিবর্তে যেকোনো নড়াচড়া অনুভব করতে তাদের ত্বক ব্যবহার করে। সাপ তাদের ত্বকের তরঙ্গের মাধ্যমে তাদের চারপাশে যে কোনও কার্যকলাপ সনাক্ত করে। এমন পরিস্থিতিতে সাপ যখন বিপদ বোধ করে, তখন তারা বিষ ছড়ায় সেই বিপদের দিকে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button