বলিউডবিনোদন

Bollywood : সৌন্দর্যের নিরিখে মায়ের থেকে কোনো অংশে কম না রবিনা ট্যান্ডনের ছোট মেয়ে, দেখুন ছবি

রবিনা ট্যান্ডনের ছোট মেয়ে একেবারে মায়ের মতই সুন্দরী ও গ্ল্যামারাস

Bollywood : বয়সের গণ্ডি স্পর্শ করেছে প্রায় ৪৬। কিন্তু এই বয়সেও নিজের সৌন্দর্য ধরে রেখে সকলকে অবাক করে দিয়েছেন এক বলিউড অভিনেত্রী। আশা করি, সবাই বুঝে গিয়েছেন কার কথা বলা হচ্ছে। আসলে বলিউড অভিনেত্রী রবীনা ট্যান্ডন এখনও অব্দি আগের মতোই সৌন্দর্য বজায় রেখে চলেছেন। তাঁর এখনকার ছবি দেখে এটা বলা খুব মুশকিল যে তার বয়সের কাঁটা ৫০ এর দিকে ঝুঁকেছে। এছাড়াও আপনি এটা শুনলে আরও অবাক হবেন যে, ৪ সন্তানের মা হওয়া সত্বেও রবীনা ট্যান্ডন এখনও এত সুন্দরী। তাঁর সৌন্দর্যের সামনে ক্লিন বোল্ড হয়ে যান অনেক আধুনিক বলিউড অভিনেত্রীও।




মায়ের মতোই সৌন্দর্যের নিরিখে রাশার সামনে হার মানবেন অনেকেই। বয়সের সাথে সাথে তাঁর জৌলুস যেন বেড়েই চলছে। রাশা মায়ের মতই অপরূপ সুন্দরী। মাত্র ১৬ বছর বয়সে ওই ছোট কন্যার সৌন্দর্য্য বোল্ড আউট করতে পারে অনেককেই। সোশ্যাল মিডিয়ার দুনিয়াতে আজকাল বেশ চর্চায় রয়েছেন রবিনার মেয়ে। এমনকি অনেকেই তাঁকে বলিউডের তাবড় তাবড় অভিনেত্রীদের সাথে তুলনা করে থাকেন। আর আপনিও তাঁর ছবি দেখলে মেনে নেবেন সেইসব মন্তব্যের কোনো অযৌক্তিকতা নেই।

মাত্র ২১ বছর বয়সে ২ সন্তানের মা হয়েছিলেন অভিনেত্রী। আসলে ১৯৯৫ সালে দুই মেয়ে পূজা ও ছায়াকে দত্তক নেন অভিনেত্রী রাভিনা ট্যান্ডন। পরে ২০০৪ সালে বিয়ে করেন তিনি। তারপর তাঁর আরও ২ সন্তান হয়। অভিনেত্রীর চার সন্তান। তবে নিজের সন্তান কি দত্তক নেওয়া সন্তান সকলেই, তাঁর কাছে সমান। অভিনেত্রী ২০০৪ সালে অনিল থাডানিকে বিয়ে করেন। অনিলের সাথে রবিনার দুই সন্তানের জন্ম হয়। এক ছেলে ও এক মেয়ে। তাঁদের কনিষ্ঠতম মেয়ের নাম রাশা থাডানি। আজকের এই প্রতিবেদন রবীনার ছোট মেয়ে রাশার সম্বন্ধে জানবো আপনাদের।

সোশ্যাল মিডিয়াতে বেশ সক্রিয় থাকেন রাশা। মাঝে মাঝে তিনি হট অবতারে বিভিন্ন ফটোশুট করে বা রিল ভিডিও বানিয়ে পোস্ট করে নেটিজেনদের নজরে আসেন। অনেকেই তাঁর মিষ্টি কিউট হাসির ডাই হার্ড ফ্যান। তবে রবিনার মেয়ে অভিনয় জগতের প্রতি একদমই আগ্রহী নয়। বরং তাঁর প্যাসান গান বাজনা বা মিউজিক। সে গান-বাজনা জগতের সাথে থেকেই নিজের জীবন কাটাতে চান।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button